1. [email protected] : editor :
  2. [email protected] : foysal parveg : foysal parveg
  3. [email protected] : shakil007 :
একজন কর্মকর্তাকে সাধারন মানুষ কি সম্বোধন করবে - মাগুরার খবর
বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০২:৪৬ পূর্বাহ্ন

একজন কর্মকর্তাকে সাধারন মানুষ কি সম্বোধন করবে

  • প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, ৮ অক্টোবর, ২০২০
ছবি-প্রতীকী ইন্টারনেট থেকে

মাগুরার খবর ডটকম

কথাটি ঘুরে ফিরে আসে। কোন অফিসে গেলে একজন কর্মকর্তা পর্যায়ের মানুষকে সাধারনত “স্যার” বলে সম্বোধন করা হয়। অনেকে আবার “স্যার’ বলতে নারাজ। কারন তাদের দাবী তারা তো এই কর্মকর্তার অধীনে চাকুরি করেন না। আসলে কি সম্বোধন করা উচিত? এ বিষয়টা নিয়ে রয়েছে নানা মতামত। মাগুরার খবর সেটাই তুলে ধরছে পাঠকদের জন্য।

অমিত অনার্স পড়ুয়া এক শিক্ষার্থী। সে জানায়,স্যার ডাকলে উনারা খুশি হন।আমি যখন ইন্টার দিয়ে নতুন ঢাকায় গিয়েছিলাম তখন রাস্তা বা বাস কোনটাই চিনতাম না। এক ট্রাফিক পুলিশ কার সাথে যেনো ফোনে বাক বিতন্ডা করছিলেন। এর মাঝেই যেয়ে বলি, ” স্যার, কাইন্ডলি একটু হেল্প করবেন?” যাই হোক উনি নিজে বাস দাঁড় করিয়ে আমাকে বাসে তুলে দিয়েছিলেন।

একটা স্যার ডাকাতে নিশ্চই জাত যাবে না? কিন্তু স্যার থেকে যদি এক্সট্রা বেনিফিট পাওয়া যায় তো স্যারই ভালো। কিন্তু উনাকে আর কি ডাকলে উনি সাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন তা আপনি বা আমি জানি না, কিন্তু স্যার ডাকাতে যদি কাজ হয়ে যায় বা ভালো কিছু হয় তবে স্যার ডাকলে সমস্যা কোথায়?

মনিরুল একজন ব্যবসায়ী,তিনি বলেন ,সব থেকে বেটার হয়। উনার নাম বা পদবী ধরে সাহেব বলাটা। যেমন রহমান সাহেব, করিম সাহেব, ডিসি সাহেব ,ইউএনও সাহেব, ওসি সাহেব… তার দাবী,গল্প-উপন্যাস এভাবে সম্বোধন করা আছে।

শিক্ষক শাহাদত মনে করে, স্যার, ডাকলে অসুবিধার কিছু নেই। আমি অপরিচিত অনেককেই স্যার বলেই সম্বোধন করি,যদিও আমাদের দেশে এই সম্বোধনকে অনেকেই দুর্বলতা হিসেবে নেয়।

নবাব হাসান িএক শিক্ষার্থী বলেন, অনেক সিনিয়র হলে আংকেল না হলে ভাই ডাকি আমি,, স্যার যিনি আমাকে শিক্ষা দিয়েছেন উনাকে বলি।

রায়হান সাদিদ এক প্রবাসী বললেন ভিন্ন কথা,

“আমি এই ব্যাপারে একজন ব্রিটিশকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম সে বলল এটা ব্রিটিশ পিপলদের মধ্যে এখন প্রচলিত নেই। স্যার মানে তাদের কাছেও হীনমন্যতা বোঝায় তবে কিছু ক্ষেত্রে প্রচলন আছে। প্রেসিডেনট কেও তাঁরা স্যার বলে না মি: প্রেসিডেনট বলে। শিক্ষককেও নাম ধরে বলে সেটা তাদের কালচার। আর আমরা এই স্যার ডাকা নিয়ে অনেক সময় বিব্রতকর পরিস্থিতি শুনি। জনাব বললেও সমস্যা হয় কেমন এটা অপ্রীতিকর বোধ করে। অথচ আমরা বাংলাদেশী তারপরও ইংরেজদের শেখানো সিস্টেম যেটা তারা সুবিধা নেওয়ার জন্য প্রচলন করেছিল সেই মানসিকতা পরিবর্তন করতে পারি না”

সৈয়দা আনিকা এক উদ্যোক্তা বলেন,

একই গ্রেডেএর এডমিন ক্যাডার /পুলিশ ক্যাডার কে বেশিরভাগ মানুষ অযথা স্যার স্যার বলে মুখে ফ্যানা তুলে ফেলে!

অথচ সেম গ্রেড এর একজন ডাক্তার এর কাছে গেলে তারাই ডক্টর/ডাক্তার সাহেব না বলে আপু/ভাইয়া/সিস্টার এসব বলে! অন্যান্য টেকনিকাল ক্যাডার এর খেত্রেও একই দশা! এইসব কেন!স্যার ডাকলে আমি খারাপ কিছু দেখি না। তবে পছন্দ না হলে ডাকবেননা। কেউই স্যার বলতে বাধ্য করে না আমার জানামতে, যদি না প্রফেশনাল জায়গায় যেয়ে আমি ভাইয়া/আপু/চাচা/মামা না ডাকি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান,

স্যার বলা না বলা এটা আপনার ব্যাপার । এটা জাস্ট সামনে জন কে সম্মান দিয়ে কথা বলা। একদিন রাস্তা দিয়ে হাটার সময় একজন ইউএস মিলিটারী অফিসারের সাথে ধাক্কা লাগে উনি কি সুন্দর ভাবে স্যার বলে সম্বোধন করতেছেন আমাকে এবং ধাক্কা লাগার জন্য ক্ষমা চাইছেন। আসলে সামনের জন যেই হোক তাকে সম্মান দিবেন।

দেলোয়ার নামে এক বেসরকারী কর্মকর্তা জানান,

ঠ্যালায় পরলে সবাই ই তখন দ্বিতীয় তৃতীয় শ্রেণীকেও স্যার বলে। যেমন: পুলিশের এএসআই/ এসআই, মন্ত্রনালয়ের অফিস সহকারী/ সহায়ক।এখন স্যার ডাকা আর না ডাকা আপনার পজিশনের উপরই বলে আমি মনে করি । এছাড়াও তাদেরকে সম্বোধন করা ছাড়াও কথা চালিয়ে যাওয়া যায় । আপনি সেটাও করতে পারেন।

খবরটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর
© সর্বস্বত্ব -২০১৯- ২০২০ মাগুরার খবর.    কারিগরি ব্যবস্থাপনায় - মাগুরা আইটি সল্যুশন 

কারিগরি সহায়তায়ঃ আইটি বাজার
error: মাগুরার খবর সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত